Md. Shahriar Alam

রাজশাহী-৬ (চারঘাট-বাঘা) আসনে ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে প্রথম সংসদ সদস্য হন শাহরিয়ার আলম। হলফনামা অনুযায়ী, তখন তাঁর অস্থাবর সম্পদ (টাকা, সোনা, সঞ্চয়পত্র ইত্যাদি) ছিল ২ কোটি ৩২ লাখ টাকা মূল্যের। মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের ঋণ ছিল ৬৯ কোটি টাকার বেশি।

হলফনামা বলছে, ২০০৮ সালে প্রতিমন্ত্রীর কোনো স্থাবর সম্পদ (জমি, ভবন ইত্যাদি) ছিল না। এখন তাঁর ১৭ একরের কিছু বেশি কৃষি ও অকৃষি জমি রয়েছে। রাজধানীর গুলশানে দুটি অ্যাপার্টমেন্টের মালিক তিনি। রাজশাহীতে চারতলা একটি ভবন (কার্যালয় ও বাসা) নির্মাণ করছেন তিনি।

শাহরিয়ার আলম ২০১৪ সালে নির্বাচিত হওয়ার পর পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। এর পর থেকে তিনি সেই দায়িত্বেই রয়েছেন। তিনি রাজশাহীর বাঘা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি।

শাহরিয়ার আলমের আয় কৃষি, স্থাপনার ভাড়া, ব্যবসার লভ্যাংশ ও ব্যাংক আমানতের সুদ এবং প্রতিমন্ত্রী হিসেবে পাওয়া সম্মানী। এবার তিনি বার্ষিক আয় দেখিয়েছেন প্রায় ৭ কোটি ৯৩ লাখ লাখ টাকা। এই আয় ২০০৮ সালে অনেক কম ছিল। তখন তিনি আয় দেখিয়েছিলেন প্রায় ৯৮ লাখ টাকা।

২০১৩ সালে প্রতিমন্ত্রীর আয় বেড়ে ১৪ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায়। ২০১৮ সালে কমে হয় সাড়ে তিন কোটি টাকার মতো। এখন আবার আয় বেড়েছে। বিশ্লেষণে দেখা যায়, ব্যবসার আয়ের ওপরই প্রতিমন্ত্রীর আয় ওঠানামা করেছে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top