২১ শতকে যে পরিসংখ্যানে রোনালদোর পেছনে মেসি

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ও লিওনেল মেসি এখন ভিন্ন দুই ভুবনের বাসিন্দা। ইউরোপ ছেড়ে রোনালদো গেছেন সৌদি আরবে আর মেসি নিজের ঠিকানা হিসেবে বেছে নিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রকে। তবে আলাদা দুটি মহাদেশে খেলেও এ দুজনের লড়াই যেন শেষই হচ্ছে না। বিশেষ করে পরিসংখ্যানের দিক থেকে প্রতিনিয়তই লড়ছেন দুজন।

একটি পরিসংখ্যানে মেসি রোনালদোকে ছাড়িয়ে যাচ্ছেন তো অন্য কোনোটিতে রোনালদো মেসিকে। অনেকগুলো পরিসংখ্যানে আবার লড়াইটা হাড্ডাহাড্ডি। তবে ২১ শতকে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলায় মেসিকে বড় ব্যবধানে পেছনে ফেলে এগিয়ে রোনালদো। এ তালিকায় রোনালদো শীর্ষে থাকলেও মেসির অবস্থান ৪ নম্বরে।

পেশাদার ফুটবলে প্রায় কাছাকাছি সময়ে অভিষেক হয়েছে রোনালদো–মেসির। স্পোর্টিং লিসবনের ‘বি’ দলের হয়ে রোনালদোর অভিষেক ২০০২ সালে, আর বার্সেলোনা ‘বি’ দলের হয়ে মেসি প্রথম খেলতে নামেন ২০০৩ সালে। এরপর অবশ্য দুজনকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। লম্বা সময় ধরে দলীয় ও ব্যক্তিগত শ্রেষ্ঠত্বের জন্য লড়াই করেছেন এ দুজন। যে লড়াইয়ে কখনো রোনালদো জিতেছেন আবার কখনো মেসি। গত প্রায় দুই দশকের বেশির সময়ের ক্যারিয়ারে দুজন বড় কোনো চোটেও পড়েননি।

দুজন প্রায় কাছাকাছি ধরনের ক্যারিয়ার পার করেও এ পর্যায়ে এসে রোনালদোর ম্যাচসংখ্যা মেসির চেয়ে বেশি। রোনালদো এখন পর্যন্ত ১২০৪ ম্যাচ খেলেছেন, মেসির ম্যাচসংখ্যা ১০৪৭। অর্থাৎ রোনালদো মেসির চেয়ে ১৫৭ ম্যাচ বেশি খেলেছেন।

২১ শতকে ম্যাচ খেলার এই হিসাবটি তুলে ধরেছে ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব ফুটবল হিস্টোরি অ্যান্ড স্ট্যাটিসটিকস (আইএফএফএইচএস)। প্রতিষ্ঠানটি ২০০১ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর ২০২৩ পর্যন্ত সময়কে বিবেচনায় নিয়েছে। এ তালিকায় ১ হাজার ২০০–এর বেশি ম্যাচ খেলেছেন দুজন। হাজারের বেশি খেলেছেন তিনজন। ৯০০–এর ঘরে আছেন সব মিলিয়ে ১৬ জন খেলোয়াড়।

আইএফএফএইচএসের দেওয়া হিসাবে ৩৮ পেরোনো রোনালদো ঘরোয়া লিগে ম্যাচ খেলেছেন ৬৮৫টি, আর মেসি খেলেছেন ৫৮৪টি। ঘরোয়া কাপে রোনালদোর ৯৮ ম্যাচের বিপরীতে মেসির ম্যাচ ১০৪টি।  ক্লাব আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতাগুলোয় রোনালদোর ম্যাচ ২১৬টি, মেসির ম্যাচ ১৯৭টি।

জাতীয় দলের রোনালদোর রেকর্ড ২০৫ ম্যাচ, মেসির ম্যাচ ১৮০। ম্যাচের সঙ্গে অবশ্য গোলেও মেসির চেয়ে এগিয়ে আছেন রোনালদো। পর্তুগিজ মহাতারকার গোল ৮৭৩ আর মেসির গোল ৮২১। গোলে সহায়তায় অবশ্য মেসির দাপট। মেসি সতীর্থদের ৩৬১ গোলে সহায়তা করেছেন, রোনালদো করেছেন ২৪৯ গোলে।

রোনালদো–মেসির মাঝে আছেন আরও দুই ব্রাজিলিয়ান। ২ নম্বরে থাকা ফাবিও অবশ্য কখনোই ব্রাজিলের হয়ে খেলেননি। শুধু ঘরোয়া লিগেই তাঁর ম্যাচ সর্বোচ্চ ৯৩০টি। এ তালিকায় রোনালদোকে ছাড়িয়ে যাওয়ার বেশ ভালো সুযোগ আছে ফ্লুমিনেন্সে খেলা ৪৩ বছর বয়সী এই গোলরক্ষকের। ‘সিআর সেভেনের’ চেয়ে মাত্র ২টি ম্যাচ যে কম খেলেছেন। বয়স অবশ্য তাঁকে শেষ পর্যন্ত সে সুযোগ না–ও দিতে পারে।

এই তালিকার ৩ নম্বরে আছেন আরেক ব্রাজিলিয়ান দানি আলভেজ। বার্সেলোনার এ কিংবদন্তি খেলোয়াড় অবশ্য এখন ধর্ষণের দায়ে কারাগারে আছেন। আলভেজ ঘরোয়া লিগে ম্যাচ খেলেছেন ৬২৬টি। সব মিলিয়ে সংখ্যাটি ১০৫৬।

তবে আলভেজ যে শিগগিরই মেসির পেছনে পড়ে যাবেন, তা একরকম নিশ্চিত। তালিকায় ১ হাজারের বেশি ম্যাচ খেলা পঞ্চম খেলোয়াড়টি হলেন লুকা মদরিচ। ক্রোয়েশিয়ার রিয়াল তারকা সব মিলিয়ে খেলেছেন ১০১০ ম্যাচ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top