গাজার আল–আকসা হাসপাতালের ৬০০ রোগী ও স্বাস্থ্যকর্মীর হদিস নেই: ডব্লিউএইচও

ফিলিস্তিনের গাজার আল–আকসা হাসপাতালের ছয় শতাধিক রোগী ও স্বাস্থ্যকর্মী কোথায় আছেন, তা কেউ জানেন না। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) প্রধান তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস এ কথা জানিয়েছেন।

এর আগে আল–আকসা হাসপাতালের পরিচালক জানিয়েছেন, রোগী ও স্বাস্থ্যকর্মীদের হাসপাতালটি থেকে বের হয়ে যেতে বাধ্য করা হয়েছে।

তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস আজ সোমবার এক এক্স (সাবেক টুইটার) বার্তায় লেখেন, আল–আকসা হাসপাতালের পরিচালকের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য সংকটজনক। হাসপাতালটির ছয় শতাধিক রোগী ও স্বাস্থ্যকর্মীকে বাধ্যতামূলক বেরিয়ে যেতে হয়েছে। তাঁদের কারও বর্তমান অবস্থান কেউ জানেন না।

গাজার হাসপাতালগুলোর কার্যক্রমকে ‘অত্যাবশ্যক’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান। তিনি জানান, খালি করার ঠিক আগে ডব্লিউএইচওর এক কর্মকর্তা হাসপাতালটি পরিদর্শনে গিয়েছিলেন। সেখানে ‘রক্তাক্ত মেঝে’ আর করিডরে ‘অব্যবস্থাপনা’র মধ্যেই বিভিন্ন বয়সের রোগীদের চিকিৎসা করাতে দেখা গেছে।

এক্স বার্তায় তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস আরও বলেন, গাজায় এই রক্তপাত বন্ধ হওয়া উচিত।এর আগে গত দুই দিনে গাজার আল–আকসা হাসপাতাল থেকে নিজেদের কর্মীদের সরিয়ে নেয় মেডিকেল এইড ফর প্যালেস্টানিয়ানস (এমএপি), ইন্টারন্যাশনাল রেসকিউ কমিটি (আইআরসি) ও ডক্টরস উইদাউট বর্ডারস। ইসরায়েলি বাহিনীর নির্বিচার বোমা হামলার মুখে এসব কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করা হয়।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top